২৭ বছর ধরে তালা মেরামত করি

রাস্তার পাশের একজন তালা মেরামত কারীর অভিজ্ঞতাও যে ২৭ বছরের হতে পারে তা হয়তো সবাই ভাববে না। আমরা সুশীল সমাজের মানুষ যেখানে একটি কাজ নিয়ে সাচ্ছন্দে জীবন কাটায় সেখানে একজন দিনমজুর একটা কাজের উপর নির্ভর করে না। তাদের সবসময় চিন্তা থাকে সংসারের গতি অব্যহত রাখার চিন্তা। এইসব দিনমজুর যখন অসুস্থতায় পড়ে তখন তাদের পরিবার পরিচালনায় দুর্দিন নেমে আসে।

প্রশ্নঃ আপনার নাম কি?
পিয়ারুলঃ আমার নাম পিয়ারুল ইসলাম।
প্রশ্নঃ আপনি কি কাজ করেন?
পিয়ারুলঃ আমি তালা মেরামত করি এবং চাবি বানাই।
প্রশ্নঃ কতদিন থেকে এই কাজ করছেন?
পিয়ারুলঃ আমি এই কাজ সাতাশ বছর ধরে করছি।
প্রশ্নঃ এই পেশায় যুক্ত হওয়ার গোড়ার কথা জানতে চায়।
পিয়ারুলঃ আমি ছোট বেলা থেকেই এই পেশার সাথে যুক্ত আছি।
প্রশ্নঃ অন্য আরো পেশা থাকতে এই পেশার প্রতি আগ্রহ হওয়ার কারন কি?
পিয়ারুলঃ আমার বাপ দাদারা এই পেশার সাথে যুক্ত ছিল এখন আমি যুক্ত হয়েছি।
প্রশ্নঃ কোন চোর আসে না আপনার কাছে চাবি বানাতে?
পিয়ারুলঃ চোর কিভাবে বুঝবো বলেন তবে বুঝতে পারলে সেসব কাজ করি না।
প্রশ্নঃ পরিবারে কে কে আছে?
পিয়ারুলঃ মা, বোন, সন্তান স্ত্রী সবাই আছে।
প্রশ্নঃ আপনার যা উপার্জন হয় তাতে কি আপনার সংসার চলে?
পিয়ারুলঃ আল্লাহ্‌ চালিয়ে দেয়। কোন সমস্যা হয় না।
প্রশ্নঃ কত রকমের তালা মেরামত করেছেন আপনি?
পিয়ারুলঃ সব রকমের তালা মেরামত করেছি যত তালা আছে আমার কাছে নিয়ে আসবেন মেরামত করে দিবো। এমনি গাড়ির তালার চাবিও বানাই দিতে পারবো আমি এমন টাইপের মিস্ত্রি।
প্রশ্নঃ একটা তালা মেরামত করতে কত টাকা নেন আপনি?
পিয়ারুলঃ এইটা তালার উপর নির্ভর করে। মনে করেন একটা তালার দাম ১৫০০ টাকা ঐ তালা ঠিক করতে বিল হবে কমপক্ষে ৫০০ টাকা। তালা দেখে হিসাব করে টাকা নেই।
প্রশ্নঃ আপনি তো আপনার বাপ দাদার পেশা ধরে রেখেছেন, আপনি কি চান যে আপনার ছেলেও এই কাজ করুক?
পিয়ারুলঃ না আমি আমার বাপ দাদার কাজ করছি কিন্তু আমি চাইবো আমার ছেলে চাকরি করুক ভালো কিছু করুক এই পেশায় দিব না।
প্রশ্নঃ যারা তালা মেরামত করাতে আসে তারা কি আপনার সাথে খারাপ ব্যবহার করে?
পিয়ারুলঃ হ্যাঁ এসব হয় একটু এদিক থেকে ওদিক হলে ঝাড়ি শুনতে হয় খারাপ কথা শুনতে হয়।
প্রশ্নঃ এই পেশার পাশাপাশি আপনি অন্য কিছু করেন?
পিয়ারুলঃ মটর জেলা বাস ইউনিয়নের ড্রাইভার আমি তো ঐকাজ ছেড়ে দিয়ে এই কাজে এসেছি আমি।
প্রশ্নঃ অবসর সময় কি করেন?
পিয়ারুলঃ বাসে কোন টিপ থাকলে সেখানে চলে যাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *